বিজনেস এর মাধ্যমে ইনকাম করার আগ্রহ এখন আমরা প্রতিটি মানুষের মধ্যেই দেখতে পাই তাও আবার বিশেষ করে অনলাইনের মাধ্যমে বিজনেস । অনলাইনের মাধ্যমে বিজনেস করার বেশ কিছু অনলাইন ভিত্তিক বিজনেস শপ রয়েছে । ( ডলার ইনকাম করার উপায় ) 

অনলাইন ভিত্তিক বিজনেস করার আরও একটি জনপ্রিয় বিজনেস সাইট হচ্ছে বায়জো প্ল্যাটফর্ম । ব্যাপক জনপ্রিয়তা নিয়ে দিন দিন বায়জো প্ল্যাটফর্ম সকলের কাছে অনলাইন ভিত্তিক বিজনেস করার বিস্তার লাভ করতে সক্ষম হতে যাচ্ছে । ( অনলাইনে ইনকাম করার উপায় ২০২১ )

অনলাইন ভিত্তিক কাজগুলোর মাধ্যমে যদি ঘরে বসেই বিজনেস করা যায় তাহলে ব্যাপারটা কিন্তু সকলের কাছে অনেকটা আনন্দদায়ক । অর্থাৎ আপনি যদি অনলাইন ভিত্তিক কাজ গুলোর মাধ্যমে ঘরে বসে বিজনেস করতে চান তাহলে কিন্তু আপনার জন্য বায়জো প্ল্যাটফর্ম অনেকটা সফলতা বয়ে এনে দিতে পারে । ( অনলাইনে ইনকাম করার উপায় ২০২০ )

অনলাইন ভিত্তিক মার্কেটপ্লেসগুলোতে নতুন নতুন পণ্য কেনা বেচার ঠিক কেমন চাহিদা রয়েছে এটা হয়তো আপনার জানার কথা । অনলাইনের মাধ্যমে পণ্য অর্ডারের মাধ্যমে ঘরে বসেই কিন্তু আপনি আপনার প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র গুলো পেয়ে যাবেন যার কারণে আমরা সকলের মধ্যেই অনলাইন থেকে যেকোনো পণ্য অর্ডার করার আগ্রহ দেখতে পাই । ( টাকা ইনকাম করার অ্যাপ ২০২১ ) 

বর্তমান প্রযুক্তিনর্ভর এবং ই-কমার্সের উন্নতির কারণে এটি সকলের কাছে একটি কমন ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে । আমরা কিন্তু এখন আর আমাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র গুলো ব্যবহার করার জন্য সরাসরি মার্কেটপ্লেসে অংশগ্রহণ করি না । ( ঘরে বসে মোবাইলে আয় )

ঘরে বসে কিন্তু আমরা আমাদের প্রয়োজনীয় জিনিস গুলো হাতের মুঠোয় যাই । অনেকে রয়েছে যারা অনলাইনে বিজনেস করে থাকে আর যে কারণে আমরা চাইলেই ঘরে বসে স্মার্টফোন এবং প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র গুলো ক্রয় করে নিতে পারি । ( টাকা ইনকাম করার অ্যাপ বাংলাদেশ )

অনলাইন ভিত্তিক মার্কেট প্ল্যাটফর্ম গুলোতে আমরা চাইলেই যেমন খুব সহজেই আমাদের প্রয়োজনীয় পণ্যটি অর্ডার করার মাধ্যমে পেয়ে যায় অথবা এই সুবিধাটি পেয়ে থাকি । আবার এমন অনেকেই রয়েছে যারা অনলাইনমার্কটিং এর মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করে উপার্জন করে যাচ্ছে । ( ঘরে বসে হাতের কাজ )

লং লাইফ টাইম ইনকাম করার জন্য এটি একটি অনেকটাই সহজ পদ্ধতি অথবা মাধ্যম । আমাদের আশেপাশে আমরা প্রচুর মানুষকে দেখতে পাবো যারা কিনা এই পদ্ধতির মাধ্যমে খুব সহজভাবেই ইনকাম করে অনলাইন থেকে । ( মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট ২০২০ )

প্রয়োজনীয় জিনিস থেকে শুরু করে দৈনন্দিন জীবনের প্রায় প্রতিটি কিছু আমরা একবার অনলাইন থেকে অর্ডার করে নিতে পারি । আর যার কারণে পৃথিবীর মানুষগুলো অনলাইন থেকে অর্ডার করার দিকে ঝুঁকে পড়েছে । ( মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট ২০২০ )


বায়জো অনলাইন প্ল্যাটফর্ম কি ?

বায়জো  হলো অনলাইন ভিত্তিক একটি নতুন কোম্পানি । যে মার্কেটপ্লেসে আপনি খুব সহজেই বিজনেস করতে পারবেন । অনলাইন থেকে বিজনেস করার কথা শুনে আপনাদের হয়তো দারাজের কথা মনে হতে পারে । কারণ দারাজের সাথে আমরা হয়তো কমবেশি সকলেই পরিচিত । ( অনলাইন বিজনেস লাইসেন্স )

দারাজ একটি জনপ্রিয় বিজনেস সাইট যেখান থেকে অনেকেই বিজনেস করে থাকে । ঠিক দারাজ এর মতোই অনলাইন মার্কেটপ্লেসে বিজনেস করার মত আরেকটি কোম্পানি রয়েছে যার নাম বায়জো অনলাইন শপিং প্লাটফর্ম । ( অনলাইন ব্যবসা বাংলাদেশ )

দারাজ এর মত অনলাইন মার্কেটপ্লেস আপনি ঠিক যেভাবে বিজনেস করতে পারবেন ঠিক তার মতোই বায়জো শপ দিয়েও আপনি ঠিক একইভাবে বিজনেস করতে পারবেন । বিজনেস করার মত অনেকেই রয়েছে যারা অনলাইনের মাধ্যমে বিজনেস করতে চায় তাদের উদ্দেশ্যে নতুন একটি কোম্পানি চলে আসলো বায়জো প্ল্যাটফর্ম । ( অনলাইনে পণ্য বিক্রি )

এখন আমাদের হয়তো অনেকেরই একটি প্রশ্ন জাগতে পারে যে বায়জো প্ল্যাটফর্ম এর মাধ্যমে আমরা ঠিক কিভাবে বিজনেস করতে পারব । বিজনেস করার মতো অনলাইনমার্কেটপ্লেসগুলোতে যে কোম্পানিগুলো রয়েছে তাদের মতো একইভাবে বায়জো শপ দিয়ে অনলাইনে বিজনেস করা যাবে । ( অনলাইন ব্যবসা কি )

উদাহরণস্বরূপ আমরা দারাজের কথাই বলতে পারি । এখানে আমরা ঠিক একইভাবে বিজনেস করতে পারব । খুব সহজভাবে বিজনেস করার জন্য এবং বিজনেস করে ইনকাম করার জন্য আপনারা বায়জো অনলাইন ভিত্তিক শপকে বেছে নিতে পারেন । ( অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম )

এটি একটি খুবই জনপ্রিয় কোম্পানি হতে চলেছে সকলের মাঝে বিশেষ করে বিজনেস করার জন্য । মোটামুটি ছোটখাটো বিজনেস থেকে শুরু করে বড় ধরনের বিজনেস করার জন্য আপনি এই কোম্পানিটিকে বেছে নিতে পারেন । সফল হওয়ার জন্য এবং অনলাইন মার্কেটপ্লেস থেকে সফলবিজনেসম্যানেজমেন্ট তৈরি করার জন্য আপনারা বায়জো শপ বেছে নিতে পারেন । ( অনলাইন ব্যবসা বাংলাদেশ )

বায়জো শপ একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে কি কি প্রয়োজন ?

এখন আপনি যদি বায়জো শপ এর মাধ্যমে বিজনেস শুরু করতে চান তাহলে কিন্তু আপনাকে এখানে একটি একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে । একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন ছাড়া আপনি কিন্তু এখানে বিজনেস শুরু করতে পারবেন না । আপনি যেহেতু এখান থেকে লং লাইফ টাইম হিসেবে বিজনেস করতে চান তাহলে এখানে যে তথ্যগুলো দিতে হবে সেগুলো অবশ্যই একুরেট হতে হবে । ( অনলাইন রেজিস্ট্রেশন )

অর্থাৎ আপনি এখানে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য যে সকল তথ্য দিবেন সেগুলো যেন ফলস অথবা মিথ্যা না হয় অবশ্যই আপনাকে সঠিক তথ্য অথবা আপনার পার্মানেন্টএড্রেস প্রদান করতে হবে । বায়জো শপ থেকে একাউন্ট ক্রিয়েট অথবা রেজিস্ট্রেশন করার জন্য আপনাকে যে তথ্যগুলো প্রদান করতে হবে সেগুলো নিচে দেওয়া হলো : ( রেজিস্ট্রেশন english )

  • আপনার এন আইডি মোতাবেক নাম  ।
  •  রেজিস্ট্রেশন করীর সঠিক ইমেইল এড্রেস ।
  •  আপনি যে ক্যাটাগরির বায়জো শপ একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে চান সে ক্যাটাগরি সিলেক্ট করা ।
  • একটি লোগো যুক্ত করা
  •  অতঃপর আপনার সঠিক মোবাইল নাম্বার প্রদান করতে হবে ।

বায়জো শপ এর মাধ্যমে  ভাবে ইনকাম করা যাবে ।

  • যদি আপনার নিজস্ব কোন পণ্য থাকে তাহলে সে গুলোকে এ কোম্পানির আওতায় এনে কাস্টমারদের কাছে বিক্রি করে ইনকাম করতে পারবেন । 
  • বায়জো শপ এর মাধ্যমে আপনি একজন সেলার হিসাবেও ইনকাম করতে পারবেন । 
  • বায়জো শপ এর মাধ্যমে আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর সুবিধা গ্রহণ করেও ইনকাম করতে পারবেন । যেটাকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলা হয় । 

বায়জো শপ এর সুবিধা

বায়জো শপ এর মাধ্যমে আমরা যারা বিজনেস শুরু করতে যাচ্ছে তাদের জন্য এই বিষয়টি অনেকটাই খুশির খবর বয়ে আনতে পারবে এই কোম্পানিটি । এখন আপনি হয়তো এই কোম্পানিটির আন্ডারে থেকে বিজনেস করতে চান কিন্তু কিভাবে করবেন এই বিষয়ে যদি আপনি একবার জেনে যান তাহলে কিন্তু এখান থেকে সুবিধা গ্রহণ করে বিজনেস শুরু করতে পারেন ।( BYJU’S classes )

 এই ডিজিটাল সময়ে অনলাইনের মাধ্যমে আপনি চাইলে ঘরে বসেই কিন্তু বিজনেস করতে পারবেন বায়জো শপ এর মাধ্যমে । এখান থেকে আপনি খুব সহজেই আপনি যে ক্যাটাগরিতে বিজনেস শুরু করতে যাচ্ছেন সেটিকে সবার আগেই সিলেক্ট করে নিতে হবে । সিলেক্ট করে নেওয়ার পর আপনি এ কোম্পানির মাধ্যমে বিজনেস করে খুব সহজে টাকা ইনকাম করে নিতে পারবেন । ( byju’s teachers )

এখন ধরুন আপনার একটি ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে আপনি পণ্য বিক্রির মাধ্যমে বিজনেস স্টার্ট করতে চাচ্ছেন , কিন্তু কোন কোম্পানির মাধ্যমে আপনি আপনার পণ্যগুলোকে সকলের কাছে সেল দিতে পারবেন সে বিষয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব থাকার কারণে আপন কিন্তু এখন পর্যন্ত সেই ওয়েবসাইটের যাত্রা শুরু করতে পারেন নি । ( byju’s products )

অপরদিকে আপনি কিন্তু বিভিন্ন ধরনের সাথে যুক্ত থাকতে পারেন যেখানে আপনি বিভিন্ন পণ্য সেল করে ইতিমধ্যেই আপনার বিজনেস শুরু করে দিয়েছেন । ঠিক এখন আপনি কিন্তু চাইলেই আপনার সে ওয়েবসাইটগুলোকেবায়জো শপ এর মাধ্যমে লিঙ্ক করিয়ে ইনকাম করতে পারবেন । ( byju’s classes reviews )

যদি আপনার ওয়েবসাইট গুলোতে ইনকাম করার সময় হয় তাহলে একটা সময় কিন্তু বায়জো শপ কোম্পানীর মাধ্যমে বিজনেস শুরু এবং ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন অর্থাৎ যেটাকে আমরা বলি এক ধিলে দুটি পাখি শিকার করা । ( byju’s share price )

এখন এই বর্তমান সময়ে অনেকে অনলাইনের মাধ্যমে মার্কেটিং করে নিজেদের আত্মকর্মসংস্থান গড়ে তুলেছে । আমরা আমাদের আশেপাশে তাকালে এমন অনেককেই দেখতে পাবো । হালকা কিছু জ্ঞান নিয়ে আপনি কর্মসংস্থানের খোঁজে মার্কেটিং করে নিতে পারবেন এতে করে দেশ থেকে বেকারত্বের হার অনেকটাই কমে যাচ্ছে । ( byju’s coding classes review )

এক্ষেত্রে কেবলমাত্র আমরাই নই আমাদের সাথে এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের দেশ কারণ এই কাজটির মাধ্যমে মানুষ খুব স্বল্প সময়ের মধ্যেই কেনাবেচা করতে পারে । অপরদিকে আপনার রেজিস্ট্রেশন করা একাউন্টে অর্থাৎ আপনি যখন মার্কেটপ্লেসে নিজেকে খুব ভালোভাবে তৈরি করে নিতে পারবেন সব বলতে গেলে আপনি যখন খুব ভালোভাবে আপনার বিজনেস তৈরি করতে পারবেন । ( byju’s trustpilot )

 তখন কিন্তু আপনার বিজনেস ম্যানেজমেন্ট এর কাজ গুলো আপনি একা করে উঠতে পারবেন না এজন্য আপনাকে অনেকের সাহায্য নিতে হবে একটি নির্দিষ্টএমাউন্টের মাধ্যমে । আরে জন্য তাদেরও একটি আত্মকর্মসংস্থান তৈরি হয়ে যায় । যার কারণে বেকারত্বের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে দেশ ও জাতিকে আরো একধাপ এগিয়ে নেওয়ার সুযোগ থাকে । ( byju’s negative reviews )

বাইজু শপ ফেসিলিটি

আমাদের এই নতুন কোম্পানিটির ফেসিলিটি সম্পর্কে দেখি তাহলে দেখতে পাব এখানে পণ্য ডেলিভারি করার টাইপ ডোর টু ডোর অর্থাৎ আপনার অর্ডার করা পণ্যগুলোকে আপনার ঘরের দরজার সামনে দিয়ে আসা হবে । এটি একটি খুবই ভালো ফ্যাসালিটি এই কোম্পানিটির । ( BYJU’S The Learning App )

এই দিকটি নতুন সেলারদের জন্য অনেকটা হেল্প ফুল হবে । তার কারণ হলো নতুন অবস্থায় মার্কেটে নিজেদেরকে দাঁড় করাতে অনেকটা সময় লেগে যায় কিন্তু এখানে বিশেষ একটি সুবিধা রাখার কারণে গ্রাহকেরা এই কোম্পানির মাধ্যমে তাদের পণ্যগুলোকে এক কথায় ঘরেই পেয়ে যাবে । ( BYJU’S career )

এই বাইজু মল থেকে গ্রাহকরা খুব সহজেই অথেন্টিক মূল্যে নিত্য নতুন প্রোডাক্ট পেয়ে যাবে । এছাড়াও রয়েছে আরও বিভিন্ন ধরনের ফেসিলিটি এখানে আপনারা খুব সহজেইভ্যারিফাই করা সেলারদের কাছ থেকে পণ্য অর্ডার করতে পারবেন । ( Byju’s helpline number )

কিভাবে শুরু করতে হবে ?

আপনি যখন রেজিস্ট্রেশন করে অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নেবেন ঠিক তখনই কিন্তু আপনাকে সিলেক্ট করে নিতে হবে আপনি কোন ক্যাটাগরির পণ্য বিক্রি করতে চান । যেমন ধরুন আপনার কাছে কিছু পোষাক রয়েছে অথবা আপনি পোশাকগুলোকে অনলাইন মার্কেটিং এর মাধ্যমে সেল করতে চান তাহলে কিন্তু আপনাকে পোশাক বিক্রি করার ক্যাটাগরি বেছে নিতে হবে । ( বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা )

সহজ কথায় বলতে গেলে আপনার কাছে যে পন্য রয়েছে অথবা আপনি যে পণ্যগুলোকে বিক্রি করতে চান সেই ক্যাটাগরি বেছে নিতে হবে । এক্ষেত্রে মার্কেটে আপনাকে প্রতিষ্টিত হতে হলে কিছুটা সময় লাগলেও যখন একটা সময় সততার সাথে কাজ করে মানুষের কাছে জনপ্রিয়তা লাভ করতে পারবেন তখন কিন্তু মার্কেটপ্লেসগুলোতে আপনার ব্যাপক চাহিদা বেড়ে যাবে । বুঝতে পারছেন যে আপনার চাহিদা বেড়ে যায় তাহলে এর সাথে সাথে আপনার ইনকাম অনেক বেড়ে যাবে । ( ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি লাইসেন্স )

সেলার হিসেবে বায়জো শপে কিভাবে কাজ করতে হবে ?

অনলাইন ভিত্তিক কোম্পানিগুলোতে বিজনেস করার জন্য অবশ্যই আপনাকে অনেকটা ক্রিয়েটিভিটি বা অভিজ্ঞতা সম্পন্ন হতে হবে । তার কারণ হলো আপনি যখন কোন পণ্য নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন তখন কিন্তু আপনাকে অনেক চাপ পোহাতে হয় এবং এমন একটা সময় আসে যে সময় গুলোতে আপনি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য কোথাও যাওয়ার সময় পান না । ( সেলস টার্গেট পূরনের উপায় )

তাহলে অনলাইন ভিত্তিক নতুন কোম্পানিগুলোতে বিজনেস করার জন্য আপনাকে কতটা অভিজ্ঞতা সম্পন্ন হতে হবে এবং সময় মেনটেন করে থাকলে হবে সে বিষয়ে আশাকরি এখন সকলেই বুঝতে পেরেছেন ।( সেলস অফিসারের কাজ কি )

অনলাইন ভিত্তিক বিজনেস গুলোতে আপনাকে কাস্টমারদের দরজায় গিয়ে তাদের অর্ডার করা প্রোডাক্ট গুলো দিয়ে আসতে হবে । যদি আপনি এই কাজটিতে ব্যর্থ হয়ে যান তাহলে কিন্তু পরবর্তীতে সে কাস্টমার কখনোই আর আপনার বিজনেস অ্যাকাউন্ট থেকে প্রোডাক্ট অর্ডার করবে না ‌‌। ( টেরিটরি সেলস ম্যানেজার এর কাজ কি )

সুতরাং সহজ কথায় বলা যায় আপনি যদি একটি নতুন করে কিছু পণ্যের মাধ্যমে অনলাইনে একটি বিজনেস শুরু করতে চান তাহলে কিন্তু সর্বপ্রথম আপনাকে ক্যাটাগরি বেছে নিয়ে সততার সাথে বিজনেস করে যেতে হবে । ( সেলস টার্গেট পূরনের উপায় ) 

আর অপরদিকে আপনি যদি একজন সেলার হিসাবে প্রোডাক্ট ডেলিভারি করার সময়  মানুষকে প্রতারিত করে অথবা ধান্দায় ফেলে বিজনেস স্টার্ট করতে চান তাহলে কিন্তু একটা সময় আপনাকে ঝামেলাই পোহাতে হবে কিন্তু আপনি যদি সততার সাথে কাজ করতে চান তাহলে কিন্তু আপনার ইনকাম অনেক বেশি হবে এবং আপনি কাস্টমার অনেক বেশি পাবেন । ( রিজিওনাল সেলস ম্যানেজার এর কাজ )

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *